বড়লেখায় বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী হাজিরা কার্যক্রম চালু                 বিয়ানীবাজারের পাথাড়িপাড়ায় রাস্তা নিয়ে বিরোধ, উত্তেজনা                 আদালতে ধর্ষিতার জবানবন্দি : ‘১৭দিনে বহুবার তাইন আমারে ধর্ষণ করছইন’                 পেনসিলভেনিয়া স্টেট যুবলীগের সভাপতি আলিমের কৃতজ্ঞতা                 ইতালিতে প্রবাসী বাংলাদেশীদের বৈশাখী উৎসব পালন                 বিয়ানীবাজার পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র-কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ                 শিশু ধর্ষণের অভিযোগে র‌্যাবের হাতে আটক ছারওয়ারের বিরোদ্ধে মামলা                
সর্বশেষ:

“ভালবাসা” দিবস না কি “সেন্ট ভ্যালেন্টাইনস ডে”

: বিয়ানীবাজার কন্ঠ
Published: 14 02 2017     Tuesday   ||   Updated: 14 02 2017     Tuesday
“ভালবাসা” দিবস না কি  “সেন্ট ভ্যালেন্টাইনস ডে”

 ফাহমিদ তুহিন

“ভালবাসা দিবস” নাকি “সেন্ট ভ্যালেন্টাইনস ডে” নাকি “ভালবাসা কে অপমানের আরেক নাম”মূলত এ দিবসের নাম “ভালবাসা দিবস” নয়, বরং এর প্রকৃত নাম “সেন্ট ভ্যালেন্টাইনস ডে” বা সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের দিন। এই সেন্ট ভ্যালেন্টাইনস ডে এর ইতিহাস অনেকেরই অজানা।

রোমান একজন খৃস্টান পাদ্রির নাম সেন্ট ভ্যালেন্টাইন। তার কাহিনীর উপর ভিত্তি করে এই দিনের জন্ম দেয়া হয়েছে।
তখন ছিলো ২৭০ খৃস্টাব্দ। খৃস্টান সেন্ট ভ্যালেন্টাইন ছিলেন একাধারে গির্জার পাদ্রি ও চিকিৎসক। খৃস্ট ধর্ম প্রচারের অভিযোগে রোমের সম্রাট দ্বিতীয় ক্লাডিয়াসের আদেশে তাকে কারাবন্দী করা হয়।

জেল থেকে তিনি টিনেজ ছেলে মেয়েদের প্রচুর ভালবাসার চিঠি পেতেন। এ জেলেই তিনি কারারক্ষীর এক অন্ধ মেয়ের দৃস্টিশক্তি ফিরিয়ে আনেন চিকিৎসার ম্যাধ্যমে। এতে তার জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেলে রাগে ক্ষোভে হিংসায় পতিত হয়ে রোমান সম্রাট তাকে হত্যা করে।
সেদিন ছিলো ১৪ ফেব্রুয়ারী। মরার আগে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন সেই মেয়েটিকে একটি চিঠি লিখেন। এতে লেখা ছিলো- “ফ্রম ইয়োর ভ্যালেন্টাইন”.

সেই ঘটনার সুত্রে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের নামানুসারে পোপ প্রথম জুলিয়াস সিজার ৪৯৬ খৃস্টাব্দে ১৪ ফেব্রুয়ারী কে “সেন্ট ভেলেন্টাইন ডে” হিসেবে ঘোষণা দেন।
বাংলাদেশে এই দিবস পালন করে আসছে ১৯৯৩ সাল থেকে। শফিক রেহমানের সাপ্তাহিক যায়যায়দিন নামক চটি পত্রিকার মাধ্যমে এই দিবসটির সাথে এ দেশের মানুষ পরিচিত হয়।

‘সেন্ট ভ্যালেন্টাইনস ডে’……আসলে এটি একটি রোমান ইতিহাস মাত্র।অথচ দিবসটি অশ্লীল আর কুরুচিপূর্ণ কার্যকলাপ দিয়েই পালিত হয়।নতুন প্রজন্মের ছেলে মেয়েরা এই দিবসটির আসল অর্থ না বুঝেই ফালা ফালি, লাফা লাফি, লুতুপুতু সহ সব ধরনের নোংরা কার্যকলাপে নিজেদের এই ভ্যালেন্টাইনস ভাইরাসে আক্রান্ত করছে।

পশ্চিমারা স্বদেশে নৈতিকতা বিসর্জন দিয়ে ওপেন সেক্স চালু করেছে…। এ দিবস পালনের আড়ালে পশ্চিমাদের মতো আমাদের দেশেও যুব সমাজের চরিত্র কতো অধপতন হচ্ছে, তা কি আমরা চিন্তা করে দেখি?

যদি ১৪ ই ফেব্রুয়ারির এই দিবসটি সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের কাহিনী অবলম্বনে জন্ম হয়ে থাকে তাহলে দিনভর লুচ্চামি থেকে নিজেকে বিরত রেখে দিনটির মাধ্যমে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো উচিত।

আর যদি কেউ দিনটিকে ‘ভালবাসা দিবস’ বলে থাকেন তবে আমার প্রশ্ন – ভালবাসার জন্য কি কোনো নির্দিষ্ট দিবসের প্রয়োজন?? উত্তরটি সবার জন্য উন্মুক্ত।

আমার মতে দিনটির মাধ্যমে কিছু প্রেমিক যুগলকে দৈহিক চাহিদা মেটানোর জন্য জাতীয় ভাবে সুযোগ করে দেয়া হয়।

ভালবাসাকে সম্মান করতে শিখুন। ভালবাসাকে কাগজ বানিয়ে আবার ছিঁড়ে পায়ের নিচে না ফেলে এর মর্যাদা করতে শিখুন। তবেই একদিনের জন্য নয়,পুরোটা বছর জুড়ে ভালবাসা পাবেন…

Share Button
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Share Button
May 2017
S S M T W T F
« Apr    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  

devolop web-it-home, 2017